না’গঞ্জে অপহরণকারী চক্রের ৫ সদস্য গ্রেফতার

স্টাফ রিপোর্টার নারায়ণগঞ্জ: নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলার ফতুল্লা থেকে অপহরণের ঘটনায় অপহরণ সংঘবদ্ধ চক্রের ৫ সদস্যকে গ্রেফতার করেছে ৠাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন ৠাব। এ সময় তাদের কাছ থেকে মুক্তিপণ বাবদ আদায় করা  ৭৯ হাজার ৯শ ৫০ টাকা উদ্ধার করা হয়।
মঙ্গলবার ১৯ জুলাই রাতে নারায়ণগঞ্জ মহানগরের সিদ্ধিরগঞ্জে ৠাব-১১ এর সদর দপ্তরে সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানান এএসপি আলেপ উদ্দিন।
আটকরা হলেন-  ফতুল্লা থানাধীন ভূঁইগড় পূর্বপাড়া এলাকার শিউলী বেগম (৩৫), নাছিমা আক্তার (৩৫), নাছিমা বেগম (৪০), মমতাজ বেগম (৪৫) ও জসিম মিয়া (৩৮)।
সংবাদ সম্মেলনে আলেপ উদ্দিন জানান, সম্প্রতি শিউলী বেগম এবং তার সহযোগী নাছিমা আক্তার মিলে স্থানীয় হুমায়ূন আহমেদ নামের এক ব্যক্তির সঙ্গে মোবাইলে প্রেম করে। পরে প্রেমের ফাঁদে ফেলে গত ১৭ জুলাই মমতাজ বেগম এর নিজস্ব বাসার হুমায়ূন আহমেদ ও শাহজালালকে নিয়ে ২য় তলায় নির্দিষ্ট রুমে নিয়ে আসে এবং আটক করে রাখে। এরপর উক্ত ভিকটিমদ্বয়ের সঙ্গে বাসায় অবস্থানরত অজ্ঞাত মেয়েদের সঙ্গে মেরে ফেলার ভয় দেখিয়ে জোরপূর্বক মোবাইল ফোনের মাধ্যমে আপত্তিকর ছবি তুলে এবং ভিডিও করে। ছবি ইন্টারনেটে প্রকাশ করবে বলে বিভিন্ন ধরনের ভয়ভীতি প্রদর্শন করে ও মুক্তিপন বাবদ হুমায়ন আহমেদের ব্যবহৃত মোবাইল দিয়ে তার ব্যবসায়িক পার্টনার শাহ জালালের স্ত্রীর মোবাইলে কল করে ০১৬৭৪০৮৭১৬৬, ০১৬৮৯১৯২০১৬ এবং ০১৭৬২৬৮৭৫২৩ মোবাইল নাম্বারে ৩ লাখ টাকা বিকাশ করতে বলে।
বিকাশ নাম্বারগুলোতে বিভিন্ন মোবাইল হতে ভিকটিমদ্বয় ৩ লাখ টাকা পরিশোধ করার পরেও অপহরণকারীরা তাদেরকে মুক্তি দিতে অস্বীকৃতি জানায় এবং আরও ৩ লাখ  টাকা দাবি করে। পরে শাহ জালালের কাছ থেকে জোরপূর্বক সোস্যাল ইসলামী ব্যাংকের এটিএম কার্ড ও পিন নাম্বার নিয়ে সংশ্লিষ্ট অ্যাকাউন্ট হতে দুই দিনে আলাদাভাবে ১ লাখ টাকা করে মোট ২ লাখ টাকা উত্তোলন করে।
এর প্রেক্ষিতে হুমায়ূন আহমেদ ও শাহজালালের অপর ব্যবসায়িক অংশীদার মো. জসিম উদ্দিন গত ১৮ জুলাই ৠাব-১১ এর নিকট একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করে। পরে মঙ্গলবার সকাল থেকে বিকেল পর্যন্ত ফতুল্লা থানাধীন ভূঁইগড় পূর্বপাড়া এলাকা হতে অপহরণকারী চক্রের মূল হোতা শিউলী বেগমসহ ৫ সদস্যদেরকে মুক্তিপণের আংশিক টাকাসহ আটক করতে সক্ষম হয়। উদ্ধার করা হয় ওই দুইজনকে।


শেয়ার করুন

0 মন্তব্য: