জাতীয় ঐক্যের আহবান রওশন এরশাদের

ঢাকা ব্যুরো:  জাতীয় ঐক্য গড়ে তুলে জঙ্গিবাদ মোকাবেলা করার আহবান জানিয়েছেন বিরোধীদলের নেতা রওশন এরশাদ।
তিনি বলেছেন, আমরা জাতীয় ঐক্যের কথা বলেছি। সকলে ঐক্যবদ্ধ ভাবে পরিস্থিতি মোকাবেলা করতে হবে। সামাজিক নিরাপত্তা বেষ্টনী গড়ে তুলতে হবে। সরকারকে শক্ত হাতে পরিস্থিতি দমন করতে হবে। দেশে লেখক, ব্লগাররা কেন মারা গেল আমরা তা খুঁজে দেখলাম না।
রওশন এরশাদ মঙ্গলবার ১৯ জুলাই সম্প্রতি গুলশানের হলি আর্টিজান রেস্টুরেন্ট ও  শোলাকিয়ায় জঙ্গি হামলা, সৌদি আরবের মদিনায় ও ফ্রান্সে নৃশংস হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় জাতীয় সংসদে সাধারণ আলোচনায় অংশ নিয়ে তিনি এসব কথা বলেন।
গুলশানে হামলাকারী জঙ্গিদের উদ্দেশ্য ছিল কিছু বিদেশি লোক মেরে অস্থিতিশীল পরিস্থিতি সৃষ্টি করা। গুলশানে এত বড় ঘটনা ঘটলো এ সর্ম্পকে আগে থেকে কারো কাছে কোনো খবর ছিলনা কেন। সন্ত্রাসীদের সঙ্গে একটা নেগোশিয়েট করে লোকজনকে বের করে আনার চেষ্টা কেন করা হলো না। আমরা জাতীয় ঐক্যের কথা বলেছি। জাতীয় ঐক্য গড়ে তুলে সকলের ঐক্যবদ্ধ ভাবে পরিস্থিতি মোকাবেলা করতে হবে। সামাজিক বেষ্টনী গড়ে তুলতে হবে। শক্তহাতে এসব জঙ্গিবাদের ঘটনা দমন করতে হবে। সরকারকে অস্থিতিশীল হলে চলবে না।
এই জঙ্গিবাদের সৃষ্টি একদিনে হয়নি অনেক দিনের পুঞ্জিভূত সমস্যা থেকে এঘটনা ঘটেছে। এখানে কর্মসংস্থান নেই, তরুণদেন মোটিভেটেড করে তারা সুযোগ নিচ্ছে। বেশির ভাগ লোকের কোনো কাজ নেই। ১৬ কোটি মানুষের মনে হয় এখন ১৮ কোটি হয়ে গেছে।
দেশে বেশির ভাগ লোকের কোনো কাজ নেই। কর্মসংস্থান, শিল্পায়ন সৃষ্টি করা হচ্ছে না। একের পর এক ফ্লাইওভার ও ফোরলেন রাস্তা করা হচ্ছে। বলা হয় সরকার ৬ লাখ লোকের কর্মসংস্থান করেছে। এই ছয়লাখ কারা? নিশ্চয়ই সরকারি দলের লোকজনের হয়েছে। দেশের জনগণের হয়নি। ফ্লাইওভার না করে ইন্ডাস্ট্রিজ করলে দেশ ভালো চলতো।


শেয়ার করুন

0 মন্তব্য: