লাশ চুরির আশঙ্কায় রাত জেগে কবর পাহারা

স্টাফ রিপোর্টার লালমনিরহাট: লালমনিরহাটের আদিতমারীতে কাঠমিস্ত্রি শফিকুলের লাশ চুরি হয়ে যেতে পারে, এ আশঙ্কায় রাত জেগে কবর পাহারা দিচ্ছেন তার স্বজনরা।
লাশের ময়নাতদন্তের রিপোর্ট প্রত্যাখ্যান করেছে তার পরিবার। লাশ ফের ময়নাতদন্তের জন্য লালমনিরহাট সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে হত্যা মামলা দায়ের করা হয়েছে।
এ মামলার বিবরণে জানা গেছে, আদিতমারী উপজেলার ভেলাবাড়ি ইউনিয়নের শালমারা গ্রামের শফিকুল ইসলামকে (৪২) ২২ জুলাই সন্ধ্যায় বাড়ি থেকে ডেকে নেন একই গ্রামের আব্দুল মান্নানের ছেলে হুমায়ুন কবির (৪০)। পরদিন ২৩ জুলাই সকালে কবিরের বাড়ির পাশের গাছে ঝুলন্ত অবস্থায় শফিকুলের লাশ উদ্ধার করে আদিতমারী থানা পুলিশ।
লাশ লালমনিরহাট সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠিয়ে থানা পুলিশ একটি অপমৃত্যু মামলা দায়ের করে।
নিহতের স্ত্রী হত্যা মামলা দায়ের জন্য চাপ দিলে থানা পুলিশ ময়নাতদন্তের রিপোর্ট পাওয়ার পর মামলা নেওয়ার প্রতিশ্রুতি দেয়।
নিহতের স্ত্রী শাহিনার দাবি, পাওনা টাকার পরিবর্তে শাহিনাকে কুপ্রস্তাব দিলে শফিকুল কবিরকে গালমন্দ করেন। এরই জের ধরে তার স্বামীকে শ্বাসরোধে হত্যা করে গাছে ঝুলিয়ে রাখে কবির।
এদিকে, গলায় রশি পেঁচিয়ে শফিকুলের মৃত্যু হয়েছে বলে প্রতিবেদন জমা দিয়েছে লালমনিরহাট সদর হাসপাতালের ফরেনসিক বিভাগের চিকিৎসক আজমল হক। কিন্তু ফরেনসিক বিভাগের এ রিপোর্ট মানতে রাজি নন নিহতের স্ত্রী ও স্বজনরা।
নিরুপায় হয়ে নিহতের স্ত্রী শাহিনা বেগম শফিকুলের লাশ ফের ময়নাতদন্তের দাবি করে ২১ আগস্ট লালমনিরহাট আদালতে একটি হত্যা মামলা (মামলা নং ১৪২/১৬) দায়ের করেছেন।
এ ঘটনার পর ঘাতকরা শফিকুলের লাশ কবর থেকে চুরি করার অপচেষ্টা চালাচ্ছে বলে রাত জেগে কবর পাহারা দিচ্ছেন স্বজনরা।
কবর পাহারারত নিহতের ভাই ফজল, রেজাউলসহ অনেকেই জানান, শফিকুলের হত্যাকারীরা লাশ কবর থেকে চুরি করে আলামত গায়েব করার চেষ্টা করছে। তাই রাত জেগে পালাক্রমে তারা পাহারা দিচ্ছেন।
লালমনিরহাট সদর হাসপাতালের ফরেনসিক বিভাগের চিকিৎসক আজমল হক  জানান, সিভিল সার্জনসহ দুই সদস্যের তদন্ত বোর্ড এটি আত্মহত্যার আলামত হিসেবে নিশ্চিত হয়েছেন। তাই সংশ্লিষ্ট থানায় এ ঘটনার ফরেনসিক রিপোর্ট পাঠানো হয়েছে।
আদিতমারী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) হরেশ্বর রায় জানান, নিহত শফিকুল আত্মহত্যা করেছেন বলে ফরেনসিক রিপোর্ট দিয়েছেন চিকিৎসকরা। অপরদিকে, নিহতের স্ত্রীর আদালতে দায়ের করা মামলাটিও তদন্তাধীন।


শেয়ার করুন

0 মন্তব্য: