আলোচনায় সোহেল তাজও


নিজস্ব প্রতিবেদক- সদ্য প্রয়াত ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আনিসুল হকের মৃত্যুর পর তার শূন্য পদে কে হচ্ছেন আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থী এ নিয়ে আলোচনা এখন সর্বত্র। দলীয় সূত্রে জানা গেছে, রাজধানী ঢাকাকে রাজনৈতিকভাবে নিজেদের দখলে রাখতে, জনপ্রিয়তা ও সাংগঠনিক শক্তির জানান দিতে আওয়ামী লীগ এমন কাউকে প্রার্থী হিসেবে নির্বাচন করতে চাইছে যিনি জনপ্রিয়তা ও ভোটব্যাংকের ভিত্তিতে সবার থেকে এগিয়ে। আর এ মনোনয়ন তালিকায় আলোচনায় রয়েছেন স্বাধীন বাংলাদেশের প্রথম প্রধানমন্ত্রী শহীদ তাজউদ্দিন আহমেদের পুত্র সাবেক স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী তানজিম আহমেদ সোহেল তাজ। ঢাকা উত্তর সিটি মেয়র পদে উপনির্বাচনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী হিসেবে তাকে চাচ্ছেন আওয়ামী লীগের কিছু কর্মী সমর্থক।
দলটির নীতিনির্ধারকরা বলছেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বিগত সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনের মতো এবারের উপনির্বাচনে দলীয় প্রাথী নির্বাচনে চমক দেখাবেন। এছাড়া আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আগে এই নির্বাচন দলের জন্য একটি বড় চ্যালেঞ্জ। কারণ এই উপনির্বাচন অনেকটাই আগাম জাতীয় সংসদ নির্বাচনের বার্তা বহন করবে।
এ বিষয়ে আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক খালিদ মাহমুদ চৌধুরী গণমাধ্যমকে বলেন, ‘সাংবিধানিক বাধ্যবাধকতা থেকে আমাদের এ নির্বাচন দিতে হবে। তবে দলে আনুষ্ঠানিকভাবে মনোনয়নের বিষয়ে এখানো কোনো কথা হয়নি।’তিনি বলেন, ‘নির্বাচন কমিশন শিডিউল ঘোষণা করলে সে অনুযায়ী হয়ত মনোনয়নের দেয়ার প্রক্রিয়া শুরু হবে। সাধারণ মানুষের কাছে যার গ্রহণযোগ্যতা আছে, প্রয়াত মেয়র আনিসুল হকের মত মানুষ যাকে স্বতঃস্ফূর্তভাবে ভোট দেবে এমন প্রার্থী আমরা চাই।’খালিদ মাহমুদ বলেন, ‘এ ক্ষেত্রে সোহেল তাজ বেশ শক্তিশালি প্রার্থী। তার জনপ্রিয়তা আছে। তিনি আসলে এখানে স্বাচ্ছন্দ্যে কাজ করতে পারবেন।’
সোহেল তাজকে মনোনয়ন দিতে সামাজিক গণমাধ্যমে সরব অনেক আওয়ামী সমর্থক। এ জন্য তারা ইভেন্টও খুলেছেন। এ বিষয়ে আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ বলেন, সোহেল তাজের ব্যাপারে দলীয় ফোরামে এখনো কোনো আলোচনা হয়নি। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে এসব আলোচনা হচ্ছে। তবে দলীয় ফোরামে আলোচনা হলে সাংবাদিকদের জানানো হবে।
তিনি বলেন, সিটি কর্পোরেশনের উপনির্বাচনে প্রার্থী বাচাইয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা চমক দিবেন। পরিস্কার ইমেজের কাউকে দলের পক্ষ থেকে মনোনয়ন দেওয়া হবে। শুধু এটুকু বলতে পারি। আর তফসিল ঘোষণার পরই দলীয় প্রার্থীর নাম ঘোষণা করা হবে।
সোহেল তাজ ছাড়াও প্রয়াত আনিসুল হকের স্ত্রী রুবানা হক, ইন্টার পার্লামেন্টারি ইউনিয়নের (আইপিইউ) সভাপতি ও ঢাকা-৯ আসনের এমপি সাবের হোসেন চৌধুরী, ঢাকা তেজগাঁও এলাকার সাবেক এমপি এইচ বি এম ইকবাল ও এক সময়ের সাড়া জাগানো চিত্র নায়িকা কবরীও আছেন আলোচনায়।
দলীয় সুত্রে জানা গেছে, গাজীপুর-৪ আসনের পদত্যাগী সংসদ সদস্য তানজিম আহমেদ সোহেল তাজকে অচিরেই ডেকে পাঠাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সোহেল তাজের সায় থাকলে আওয়ামী লীগের প্রার্থী হিসাবে তাকেই বেছে নেওয়া হবে। সাবেক স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী সোহেল তাজ বর্তমানের দেশের বাইরে আছেন। আগামী ২৪ ডিসেম্বর তার দেশে ফেরার কথা আছে। তবে এর আগে দেশে এক জনসভায় সোহেল তাজ জানিয়েছিলেন আপাতত রাজনীতি তিনি সক্রিয় হবেন না।
গত ৪ ডিসেম্বর আনিসুল হকের মৃত্যুতে ঢাকা উত্তর সিটির মেয়র পদ শূন্য ঘোষণা করে গেজেট প্রকাশ করে স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়। প্রকাশিত ওই গেজেটে বলা হয়, স্থানীয় সরকার (সিটি নির্বাচন) আইনের ১৫ (ঙ) ধারা অনুযায়ী, ১ ডিসেম্বর থকে মেয়র পদটি শূন্য ঘোষণা করা হয়েছে।
গেজেট প্রকাশের ৯০ দিনের মধ্যে ঢাকা উত্তরের মেয়র পদে উপ নির্বাচন দিতে হবে নির্বাচন কমিশনকে। এরই মধ্যে সেই প্রস্তুতি নিতে শুরু করেছে ইসি। ইসির প্রস্তুতির মধ্যে শঙ্কাও আছে। কেননা নতুন ১৮টি ওয়ার্ড উত্তর সিটির সঙ্গে যুক্ত হওয়ায় আইনগত জটিলতা সামনে আসছে।

শেয়ার করুন

0 মন্তব্য: