দিনমজুর থেকে বিসিএস ক্যাডার


জাহিদুলের বাবা ট্রেনে ঘুরে ঘুরে এটা-ওটা বিক্রি করতেন। কোদাল দিয়ে কুপিয়ে মা জমি চাষ করতেন। বড় ভাই তাঁর চাচার দোকানে কাজ করতেন। সেখান থেকে প্রতি ঈদে প্রিন্টের কাপড়ের জামা বানিয়ে দিতেন। ওটাই জাহিদুলের সারা বছরের পোশাক। বিদ্যালয়ের বন্ধুরা যখন উৎসবমুখর হয়ে শিক্ষাসফরে গিয়েছে কিংবা ঈদের ছুটিতে হইহল্লায় মেতেছে, জাহিদুল তখন বাজারে ছোলা মুড়ি বিক্রি করেছেন। কখনো–বা রাত জেগে ভাইয়ের দোকানে কাজ করেছেন।
এসএসসি পরীক্ষায় এলাকার অনেকগুলো স্কুলের মধ্যে সেরা ফল করেন জাহিদুল ইসলাম। ভর্তি হলেন রাজবাড়ী সরকারি কলেজে। বড় ভাই চাল দিয়ে যেতেন। সেটাতেই মাস পার করতে হতো। ২০০৫ সালে উচ্চমাধ্যমিক পাস করলেন। কোচিং করা তো দূরের কথা, একটা বই কেনার সামর্থ্যও ছিল না।
উচ্চমাধ্যমিক পাসের পর পাংশা কলেজে স্নাতক পাস কোর্সে ভর্তি হয়ে টিউশনি শুরু করলেন। পরের বছর সেই টাকা দিয়ে ভর্তি পরীক্ষা দিলেন। কুষ্টিয়ার ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ে ব্যবস্থাপনা বিভাগে ভর্তির সুযোগ পেলেন। ঘাড়ে চাপল ফের দুশ্চিন্তা। পড়ার খরচ পাব কোথায়! একটি বেসরকারি ব্যাংক থেকে শিক্ষাঋণ নিলেন। টিউশনিও জুটল।
কষ্টের জীবনে পড়াশোনা চলল। প্রথম শ্রেণিতে বিবিএ ও এমবিএ শেষ করলেন। পড়াশোনা শেষ। কী করবেন? ভাবতে ভাবতেই গুরুতর অসুস্থ হলেন। জাহিদুল সেই সময়ের স্মৃতিচারণা করে বলেন, ‘হাঁটতে পারি না। একদিকে দেনা, অন্যদিকে আমার অসুস্থতা। হাঁটার ক্ষমতা নেই, পকেটে টাকা নেই, মানুষের মাঝে যেতে পারিনি। ঢাকায় গিয়ে চাকরির পরীক্ষা দেব। কোথায় থাকব? ৩৪তম বিসিএসে কৃষি বিপণন ক্যাডারে প্রথম স্থান পেলাম। এই ঢাকা শহরে আমি স্বাবলম্বী, বাসা ভাড়া নিয়ে থাকি—এ আমার জীবনের অনেক বড় পাওয়া।’

শেয়ার করুন

0 মন্তব্য: