নিয়মিত শশা খাওয়া কেন জরুরী?


শশা আমাদের দেশে একটি গুরুত্বপূর্ণ সবজি ও ফল। শরীরকে ঠান্ডা ও নীরোগ রাখতে শশার গুণ অপরিসীম। 
শশার উপকারিতা জেনে নেয়া যাক,
শশা খেলে শরীরের ঠান্ডাভাব বজায় থাকে এবং শরীরে সজীবতা আসে। শশায় পটাশিয়াম, সোডিয়াম, ম্যাগনেশিয়াম, গন্ধক, সিলিকান, ক্লোরিন এবং ফ্লোরিন পর্যাপ্ত মাত্রায় থাকে। এছাড়াও শশায় ক্যালশিয়াম, ফসফরাস, আয়রন, ভিটামিন-সি এবং বি-ও প্রচুর মাত্রায় থাকে।
শশা পেটের রোগে ঔষুধির কাজ করে। পেটের অম্লতাকে দূর করে এবং আলসার রোগে উপকার আসে। শশার রস দিনে ২/৩ বার খেলে পেটের রোগ দূর হবে। নিয়মিত লবন মেখে খাবার আগে শশা খেলে কোষ্ঠকাঠিন্য দূর হয়। জন্ডিসে শশার রস পান করলে উপকার হয়। প্রস্রাব করা অবস্থায় অনেক সময় জ্বালা-যন্ত্রণাও হয়। এ রোগে শশা খুব ভাল ঔষুধ। 
শশা খাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে পানি খাওয়া উচিত নয়। যেসব ব্যক্তির অ্যাসিডিটির সমস্যা আছে তাদের খাদ্য-তালিকায় শশা রাখা প্রয়োজন। শশায় প্রচুর মাত্রায় পানি থাকে। গরমের দিনে শশা খেলে শরীরের শুস্কতা দূর হয়। ত্বকের রোগেও শশা উপকারী। এটা ত্বকের উজ্জ্বলতা বাড়িয়ে তোলে এবং দাগ দুর করতে সাহায্য করে। 
গাজরের রসের সঙ্গে শশার রস মিশিয়ে পান করলে লাভ হয়। শশার রস ত্বকের জন্য এক বিশেষ ধরনের টনিকের কাজ করে। মুখে ব্রণ-ফুসকুড়ি, কালো দাগ, ত্বকে ভাঁজ পড়া ইত্যাদিতে শশার রস লাগালে উপকার হয়। শশায় সিলিকান এবং সালফার থাকায় ত্বককে সুন্দর করে এবং ত্বককে সংক্রামণের হাত থেকে রক্ষা করে। 
নিয়মিত শশা খেলে বিভিন্ন ধরনের রোগের হাত থেকে মুক্তি লাভ সম্ভব।

শেয়ার করুন

0 মন্তব্য: