টাইগারদের ঐতিহাসিক জয়ে কাটলো খরা

স্পোর্টস ডেস্ক
অবশেষে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে নিদাহাস ট্রফির তৃতীয় ও নিজেদের দ্বিতীয় ম্যাচে ৫ উইকেটের রেকর্ড জয় তুলে নিল বাংলাদেশ। টি-২০ ক্রিকেটের ইতিহাসে এটিই টাইগারদের সবচেয়ে বড় রান তাড়া করে জয়ের ঘটনা। পাশাপাশি কাটলো টাইগারদের জয়ের খরা।
টস হেরে প্রথমে ব্যাট করতে নেমে নির্ধারিত ২০ ওভার শেষে ৬ উইকেট হারানো শ্রীলঙ্কার সংগ্রহ দাঁড়ায় ২১৪ রান। কুশাল পেরেরা ৭৪, কুশাল মেন্ডিস ৫৪, উপল থারাঙ্গা ৩২* ও গুনাথিলাকা ২৬ রান করেন। বল হাতে বাংলাদেশের মুস্তাফিজ ৩টি, মাহমুদউল্লাহ ২টি ও তাসকিন ১টি উইকেট নেন।
জয়ের লক্ষ্যে খেলতে নেমে বাংলাদেশকে উড়ন্ত সূচনা এনে দেন দুই ওপেনার তামিম ইকবাল ও লিটন কুমার দাস। দুজনে মিলে উদ্বোধনী জুটিতে যোগ করেন ৭৪ রান। দলীয় ৭৪ রানে ১৯ বলে ৪৩ রান (দুটি চার ও পাঁচটি ছক্কা) করা লিটন বিদায় নেওয়ার একটু পর সাজঘরে ফিরতে হয় ২৯ বলে ৪৭ রান (ছয়টি চার ও একটি ছক্কা) করা তামিম বিদায় নিলে। তবে এউই দুজনের বিদায়ে বাংলাদেশ যে লড়াইয়ের ভিত পায়, তাই দলকে যোগায় বাড়তি সাহস।
ওয়ান ডাউনে ক্রিজে নেমে বলের সাথে পাল্লা দিয়ে ম্যাচ অনুযায়ী রান নিতে পারেননি সৌম্য সরকার। ২২ বলে ২৪ রান করে তিনি বিদায় নিলে একটু চাপ ঘিরে ধরে বাংলাদেশকে। তবে এরপর দলকে আলোর পথ দেখান মুশফিকুর রহিম ও অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ্‌ রিয়াদ। দুজনে যথারীতি মারকুটে ব্যাট চালাতে থাকলে একপর্যায়ে দিশেহারা হয়ে পড়ে শ্রীলঙ্কার বোলিং লাইনআপ। ইনিংসের ১৮তম ওভারে পৌঁছে ছক্কা হাঁকাতে গিয়ে মাহমুদউল্লাহ্‌ বিদায় নেন, তার আগে ১১ বল খেলা অধিনায়কের ব্যাট থেকে আসে ২০ রান। এর একটু পর আউট হয়ে যান সাব্বিরও। তবে ফিফটি তুলে নেওয়া মুশফিক মেহেদি হাসান মিরাজকে সঙ্গে নিয়ে শেষ পর্যন্ত পৌঁছে যান জয়ের বন্দরে, ৫ উইকেট ও ২ বল হাতে রেখে।
এদিকে শ্রীলঙ্কায় আসার পর প্রথম অনুশীলন সেশনে তামিম ইকবাল বলেছিলেন, একটি ভালো ম্যাচ। একটি জয়। তাহলেই আর থাকবে না ভয়। কেটে যাবে সংশয়।
ত্রিদেশীয় টুর্নামেন্টের প্রথম ম্যাচেও সেই জয় অধরা। ম্যাচ শেষে সেই একই কথা শোনা যায় অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহর কণ্ঠেও।
কখনও বোলিং ভালো হচ্ছে না তো কখনও ব্যাটিং। সব বিভাগ এক সঙ্গে জ্বলে উঠছে না বাংলাদেশের। একই ভুলের চক্কর তো আছেই। দীর্ঘদিন ধরে চলে আসা অতিরিক্ত ডট বলের সমস্যা আরও প্রকট হয়ে ফুটে উঠে ভারতের বিপক্ষে। ২০ ওভারের প্রায় অর্ধেক বল থেকেই রান করতে পারেনি ব্যাটসম্যানরা।

শেয়ার করুন

0 মন্তব্য: