কালো মেয়ে হিমি

কালো মেয়ে জান্নাতুল সুমাইয়া হিমি। যোগ্যতাসম্পন্ন হয়েও তার যোগ্যতা কালোর আড়ালে চাপা পড়ে থাকে। চারপাশে প্রতিনিয়ত কালোদের অবহেলা করা হয়। তথাকথিত সাদা সুন্দরের ভিড়ে কোথায় যেন হারিয়ে যায় সে। যেখানেই নিজেকে উপস্থাপন করতে যায় সেখানে যোগ্যতার সঙ্গে বাধা হয়ে দাঁড়ায় বর্ণ। এটাই যেন সমাজের নিয়ম। এমনি এক গল্পের টেলিছবিতে অভিনয় করলেন এই অভিনেত্রী। টেলিছবির নাম ‘মায়াবতী’। এটি নাম ভূমিকায় হিমিকে দেখা যাবে। এটিতে তিনি জুটি বেঁধেছেন অভিনেতা এফ এস নাঈমের সঙ্গে। গীতালি হাসানের নাট্যরূপে টেলিফিল্মটি পরিচালনা করছেন গোলাম হাবিব লিটু। নজরুল জয়ন্তী উপলক্ষে আসছে ২৫শে মে টেলিফিল্মটি চ্যানেল আইতে প্রচার করা হবে। টেলিছবিটি সম্পর্কে হিমি বলেন, এটির গল্প আমাদের সমাজের প্রতিচ্ছবি। আমার চরিত্রের নাম মায়াবতী। কিন্তু এ মায়াবতীর গায়ের রঙ কালো বলে সবাই তাকে কাজরী বলে ডাকে। আমরা ভুলে যাই সব রঙের মতো কালো একটা রঙ। তারপরও এটার প্রতি সবার অনীহা। একটা মেয়ে পরিপূর্ণ যোগ্যতাসম্পন্ন হলেও বর্ণ তার কাজে বাধা হয়ে দাঁড়ায়। সমাজে একটি কালো মেয়ে যে সমস্যাগুলোর মুখোমুখি হয় নির্মাতা গল্পে সেটি তুলে ধরেছেন। এমন একটি চরিত্রে কাজ করতে পেরে ভালো লাগছে। এক কথায় বলতে পারি গল্পটা অনেক বাস্তববাদী এবং খুবই সুন্দর। এদিকে হিমি ধরাবাহিকেও নিয়মিত অভিনয় করছেন। চ্যানেল আইতে প্রচার হচ্ছে তার অভিনীত ‘ভালোবাসার যৌথ খামার’ শিরোনামের একটি ধারাবাহিক। এটি পরিচালনা করেছেন রাজিবুল ইসলাম রাজিব। এছাড়া তার হাতে আরো রয়েছে ওয়ালিদ হাসানের ‘অন্ধকারের অন্তরালে’, গিয়াস উদ্দিন সেলিমের ‘মন পবনের নাও’ এবং মুরাদ পারভেজের ‘স্মৃতির আলপনা আঁকি’ শিরোনামের ধারাবাহিকগুলো। এদিকে সম্প্রতি অন্তর্জাল দুনিয়ায় মুক্তি পেয়েছে হিমির ‘বিবেকের কাছে প্রশ্ন’ শিরোনামের একটি স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র। এরইমধ্যে এটি দর্শকের মধ্যে দারুণ সাড়া ফেলেছে বলে জানান তিনি।

শেয়ার করুন

0 মন্তব্য: