Previous
Next

সর্বশেষ

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বিজয়নগরে  স্কুল ছাত্রের লাশ উদ্বার

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বিজয়নগরে স্কুল ছাত্রের লাশ উদ্বার


বিজয়নগর (ব্রাহ্মণবাড়িয়া) প্রতিনিধি
ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বিজয়নগরে স্কুল ছাত্র আব্দুল মান্নান  (১৬) লাশ উদ্বার করা হয়েছে ।  সে উপজেলার কালাছরা গ্রামের  আব্দুল করিমের ছেলে প্রত্যেক্ষদর্শীরা জানায় ,আজ শনিবার  সকাল ৭ টার দিকে উপজেলার সেজমুড়া রেল ষ্টেশনের নিচের পানি থেকে কাালাছরা  উচ্চবিদ্যালয়ের ১০ম শ্রেনীর ছাত্র আব্দুল মান্নানের লাশটি উদ্বার করাহয়।স্থানীয় মেম্বার বাছির মিয়া বলেন গতকাল শুক্রবার সন্ধায় সে বাড়ির লোকদের  অনুরোধে কালাছরা রুপা নদির  উপার  থেকে কাটা ধান আনতে গেলে উপারের পাহড়ী ডলের ¯্রােতে পানিতে  ভেসে যায় পরিবারের লোকজন অনেক খুজাখুজির পর  শনিবার সকালে লোকজন থেকে খবর পেয়ে পুলিশ রেল লাইনের নিচের পানি থেকে তার লাশ উদ্বার করে ।এব্যপারে বিজয়নগর থানার  ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আলী আর্শাদ বলেন ,সত্যতা স্বিকার করে  বলেন, বৃষ্টির আগ মূহুর্তে নদির উপাড় থেকে কাটা ধান আনতে গিয়ে পাহাড়ী ঢলে  ভেসে গিয়ে তার মৃত’্য হয় ,আজ শনিবার সকালে রেল লাইনের পাশে লাশ দেখতে পেয়ে পুলিশকে খবর দিলে লাশ উদ্বার করা হয় ।
বিজয়নগরে অস্রসহ ডাকাত গ্রেফতার

বিজয়নগরে অস্রসহ ডাকাত গ্রেফতার



বিজয়নগর প্রতিনিধি- বিজয়নগরে জজ মিয়া(৫০) নামক দুর্ধষ ডাকাতকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। পুলিশ জানায়, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে ইসলামপুর পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ আ স ম আতিকুর রহমান ও এ এস আই মোঃ হাবিবুর রহমান সঙ্গীয় ফোর্সসহ সোমবার  রাত ২টায় উপজেলার বুধšতী নামক স্থানে ঢাকা-সিলেট মহাসড়কে ডাকাতি প্রস্তুতিকালে তাকে আটক করে। এ সময় তার কাছ থেকে একটি দেশীয় পাইপগান উদ্ধার করা হয়। সে বিজয়নগর উপজেলার শশই গ্রামের মৃত জলফু মিয়ার ছেলে বলে জানা যায়। এ ব্যাপারে বিজয়নগর থানার ইনচার্জ আলী আর্শাদ ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, তার বিরুদ্ধে একাধীক ডাকাতি মামলা রয়েছে এবং  আইনগত ব্যাবস্থা নিয়ে জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়েছে।
বঙ্গবন্ধু-১ স্যাটেলাইট থেকে সিগন্যাল পেয়েছে গাজীপুর স্টেশন

বঙ্গবন্ধু-১ স্যাটেলাইট থেকে সিগন্যাল পেয়েছে গাজীপুর স্টেশন


সদ্য সফলভাবে উৎক্ষেপণ হওয়া বঙ্গবন্ধু-১ স্যাটেলাইট থেকে প্রাথমিকভাবে সিগন্যাল পেয়েছে গাজীপুর গ্রাউন্ড স্টেশন।
স্টেশনটির দায়িত্বশীল কর্মকর্তারা জানান, স্যাটেলাইটটি স্বাভাবিক গতিতেই তার গন্তব্যের দিকে যাচ্ছে। কক্ষপথে এটা পৌঁছতে আরো সাত থেকে নয় দিন লেগে যাবে। গাজীপুর গ্রাউন্ড স্টেশন থেকে স্যাটেলাইটটি সার্বক্ষণিক মনিটরিং করা হচ্ছে।
উৎক্ষেপণের ১ ঘণ্টা ১০ মিনিট পর গাজীপুর গ্রাউন্ড স্টেশনে প্রাথমিক সিগন্যাল আসে বলে জানিয়েছেন গাজীপুর গ্রাউন্ডের স্যাটেলাইট অপারেটর প্রকৌশলী তাজুল ইসলাম।
গাজীপুর সিটির জয়দেবপুরের টেলিযোগাযোগ স্টাফ কলেজের পাশে স্থাপন করা হয়েছে বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট গ্রাউন্ড স্টেশন। এখান থেকেই বঙ্গবন্ধু-১ স্যাটেলাইট পর্যবেক্ষণ করা হচ্ছে। 
অন্যদিকে, বেতবুনিয়ার গ্রাউন্ড স্টেশনটি রয়েছে ব্যাকআপ স্টেশন হিসেবে। মূলত কাজ হবে গাজীপুর গ্রাউন্ড স্টেশন থেকেই।
গাজীপুর বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইটের গ্রাউন্ড স্টেশনে সিগন্যাল আদান-প্রদানে ১০ টন ওজনের দুটি অ্যান্টেনা স্থাপন করা হয়েছে। এছাড়া স্টেশনে বিদ্যুতর জন্য জেনারেটর স্থাপন ও বিদ্যুত সরবরাহের জন্য ছয়টি বিকল্প ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। দেয়া হয়েছে ইন্টারনেট সংযোগ। এ গ্রাউন্ড স্টেশনটি হচ্ছে দেশের পুরো স্যাটেলাইট নেটওয়ার্কের ব্রেইন।
মহাকাশে উৎক্ষেপণের পর বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১ পরিচালনা, সফল ব্যবহার ও বাণিজ্যিক কার্যক্রমের জন্য ইতিমধ্যে সরকারি মালিকানাধীন বাংলাদেশ কমিউনিকেশন স্যাটেলাইট কোম্পানি লিমিটেড নামে একটি কোম্পানি গঠন করা হয়েছে।
স্টেশনটির পরিচালনা সম্পর্কে কর্তৃপক্ষ জানায়, এ কাজে এখন পর্যন্ত ১৮জনকে নিয়োগ দিয়ে প্রশিক্ষণ দেয়া হয়েছে। বিটিআরসি থেকে আরও জনবল নিয়ে প্রাথমিকভাবে ৩০ জনের একটি দল গাজীপুরের স্টেশনে কাজ করবে।
তারা আরো জানান, থ্যালাস এলিনিয়া প্রথম তিন বছর বাংলাদেশের সঙ্গেই স্যাটেলাইটটি পর্যবেক্ষণের কাজ করবে। এ সময়ে ধীরে ধীরে বাংলাদেশের সক্ষমতা তৈরি হয়ে গেলে তারা এর দেখাশোনার পুরো দায়িত্বভার বাংলাদেশের ওপরই ছেড়ে দেবে।
স্পেসএক্স-এর ফ্যালকন-৯ রকেটের নতুন সংস্করণ ব্লক ফাইভ বাংলাদেশ সময় শুক্রবার রাত ২টা ১৪ মিনিটে ফ্লোরিডার কেনেডি স্পেস সেন্টারের লঞ্চ প্যাড থেকে বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণ করা হয়।
যেভাবে উড়লো বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট

যেভাবে উড়লো বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট

মহাকাশে উড়লো দেশের প্রথম স্যাটেলাইট বঙ্গবন্ধু-১। সব অনিশ্চয়তা আর অপেক্ষার অবসান ঘটিয়ে অবশেষে মহাকাশ রাজত্বে প্রবেশ করলো বঙ্গবন্ধু-১। বাংলাদেশ সময় শনিবার ভোররাত ২টা ১৪ মিনিটে এটি উৎক্ষেপিত হয় যুক্তরাষ্ট্রের ফ্লোরিডার কেনেডি স্পেস সেন্টার থেকে।
মহাকাশ গবেষণা সংস্থা স্পেসএক্সের ‘ফ্যালকন-৯’ রকেটটি বাংলাদেশ সময় শনিবার ভোররাত ২টা ৪৭ মিনিটে এক টুকরো বাংলাদেশকে রেখে আসে তার নিজস্ব কক্ষপথে।
ফ্লোরিডার স্বচ্ছ আকাশে প্রায় সাত মিনিট স্যাটেলাইটটি দেখা যায়। বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইটের গায়ে বাংলাদেশের লাল-সবুজ পতাকার রঙের নকশার ওপর ইংরেজিতে লেখা রয়েছে বাংলাদেশ ও বঙ্গবন্ধু ১। বাংলাদেশ সরকারের একটি মনোগ্রামও সেখানে রয়েছে।
এর আগে গতকাল শুক্রবার ভোররাত ২টা ১২ মিনিট থেকে ৪টা ২২ মিনিটের মধ্যে স্যাটেলাইটটি উৎক্ষেপণের কথা ছিল। সব প্রস্তুতি সম্পন্ন হলেও উৎক্ষেপণের মিনিট খানেক আগে তা স্থগিত করা হয়।
স্পেসএক্সের বরাত দিয়ে রয়টার্স জানায়, সামান্য ত্রুটির কারণে উৎক্ষেপণ ২৪ ঘণ্টার জন্য স্থগিত করা হয়েছিল।
এবার বিয়ে করলেন হিমেশ

এবার বিয়ে করলেন হিমেশ

বিনোদন ডেস্ক
ভারতীয় শোবিজ জগতে যেন বিয়ের জোয়ার এসেছে। গত এক সপ্তাহে এই নিয়ে চারটি বিয়ে হয়ে গেলো। সোনম কাপুর ও আনন্দ আহুজার বিয়ের পর প্রকাশ্যে আসে নেহা ধুপিয়া ও অঙ্গদ বেদির বিয়ের খবর। তারপর শুক্রবার (১১ মে) একসঙ্গে অনুষ্ঠিত হয় দুটি বিয়ে। একটি টালিউডের নির্মাতা রাজ চক্রবর্তী ও অভিনেত্রী শুভশ্রীর বিয়ে, অন্যটি বলিউডের খ্যাতিমান সংগীতশিল্পী ও সংগীত পরিচালক হিমেশ রেশমিয়ার বিয়ে।
হ্যাঁ, দ্বিতীয় বিয়ে করলেন হিমেশ। দীর্ঘ দিনের বান্ধবী সোনিয়া কাপুরকে বিয়ে করেছেন তিনি। জানা যায়, অনেক দিন ধরেই হিমেশ ও সোনিয়া লিভ টুগেদার করতেন। অবশেষে সেই সম্পর্কটাকে পূর্ণতা দিয়েছেন তারা।  
গত ৯ মে সোনমের বিয়ের ঠিক পরের দিনই ছিল হিমেশ-সোনিয়ার মেহেদি অনুষ্ঠান। কিন্তু তাদের বিয়ের বিষয়টি পরিবারের আত্মীয়-স্বজন ছাড়া বিশেষ কেউ জানত না। যার ফলে গণমাধ্যমে খবরটি ছড়ায়নি। এদিকে শনিবার (১২ মে) রাতে অনুষ্ঠিত হবে হিমেশ-সোনিয়ার বিয়ের রিসিপশন পার্টি। এখানে বলিউডের তারকারা উপস্থিত থাকবেন।
সোনিয়াকে বিয়ে করা প্রসঙ্গে হিমেশ রেশমিয়া বলেন, জীবনের এই নতুন যাত্রায় আমি খুশি। সোনিয়া খুব ভালো মেয়ে। আমরা একে অপরকে নিঃস্বার্থভাবে ভালোবেসে এসেছি।
অন্যদিকে সোনিয়া কাপুর বলেন, হিমেশ খুব ভালো একজন মানুষ এবং ও আমার জীবন। ও আমার পৃথিবী। ওর সঙ্গে নতুন জীবন শুরু করতে পেরে আমি খুব খুশি।
উল্লেখ্য, গত বছরের জুন মাসে প্রথম স্ত্রী কোমলের সঙ্গে বিচ্ছেদ হয় হিমেশ রেশমিয়ার। ২২ বছরের বিবাহিত জীবনে হিমেশ-কোমলের একটি ছেলেও রয়েছে, তার নাম স্বয়ং।
আজব রোগ পাইকা

আজব রোগ পাইকা

অনলাইন ডেস্ক
সব সমাজেই অল্প কিছু মানুষ থাকেন যারা সর্বভুক। তবে এসব ‘যাই পাই তাই খাই’ জাতীয় লোকজনের খাদ্যের চেয়ে অখাদ্যের প্রতিই আকর্ষণ বেশি। পেরেক, চামচ, কাচ, সেফটিপিন, টুথ ব্রাশ, কার্পেট, মাথার চুল, মাটি, টয়লেট পেপার এসবই সাগ্রহে খেতে থাকেন। বাদ যায় না তেলাপোকা ও টিকটিকি-ও। 
খাওয়ার অযোগ্য বস্তুর প্রতি এই আসক্তি আসলে এক ধরনের রোগ। যার পোশাকি নাম পাইকা। শিশুদের মধ্যে এই অখাদ্য খাওয়ার প্রবণতা খুব বিরল নয়। কেউ মাটি, কেউ সাবান খায়। কেউ আবার দেওয়ালের চুন খুঁটে খায়। সম্প্রতি নেহা সাউ নামে এক ১২ বছরের মেয়ের পাকস্থলি থেকে আড়াই কেজি চুলের টিউমার বের করেন সার্জনরা।
মনোরোগে আক্রান্ত বয়স্কদের মধ্যেও এই রোগ দেখা যায়। যুক্তরাষ্ট্রের একুশ বছরের যুবক কেরি ট্রেবলিকক হট সস দিয়ে ৪ হাজারের বেশি বাসন মাজনি খেয়ে ফেলেছিলেন। যুক্তরাষ্ট্রের মিসৌরির একজনের পেটে ১৪০০ রকমের অখাদ্য উদ্ধার করেছিলেন চিকিৎসকরা। সম্প্রতি পশ্চিমবঙ্গের এক যুবকের পেট কেটে দু’টি চামচ, একটি  লোহার রডের টুকরো ও একটি জিভছোলা বের করেন সার্জনরা।
পাইকা রোগ অবশ্য নতুন নয়। তেরো শতকের গ্রিক ও রোমান সাহিত্যেও এই অদ্ভূতুড়ে রোগের উল্লেখ রয়েছে। পাইকা রোগে আক্রান্তরা এমন বিজাতীয় কিছু খান যার ভিতর কোনও পুষ্টি নেই। ইট, কাদামাটি, পাথর, রং, কাচ, পয়সা, সাবান, কাপড়, কাগজ। ৪-২৬ শতাংশ মানুষের মধ্যে পাইকা রোগে আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা থাকে। অতএব,  শিশুদের মধ্যে বাজে কিছু খাওয়ার প্রবণতা থাকলেই সতর্ক হতে হবে অভিভাবকদের। শিশুকে সাইকিয়াট্রিস্টের কাছে নিয়ে যেতে হবে।
পাইকা কী?
খাওয়ার অযোগ্য বস্তুর (মাটি, সাবান, চুল, ধাতু, কাচ, কার্পেট, ইত্যাদি) প্রতি আসক্তি এক ধরনের রোগ। যার পোশাকি নাম ‘পাইকা’।
রোগের উৎস
রোগের উৎস নিয়ে বিতর্ক রয়েছে। তবে, এই রোগের সঙ্গে মানসিক রোগ, উদ্বেগ, অপুষ্টি, রক্তাল্পতার সম্পর্ক রয়েছে।
কাদের হয়?
শিশু, গর্ভবতী মহিলা ও ডিমনেশিয়ায়া কাবু বয়স্কদের মধ্যেও এই রোগের প্রকোপ দেখা যায়। আদিবাসীদের মধ্যেও প্রকোপ বেশি।
চিকিৎসা ?
এই রোগ কাউন্সেলিং ও ওযুধ দিয়ে সম্পূর্ণ সেরে যায় বলে দাবি সাইক্রিয়াটিস্টের।
রোগের উৎস 
রোগের উৎস নিয়ে বিতর্ক রয়েছে। কারও পর্যবেক্ষণ, বাসস্থানের আশপাশে রাসায়নিক কারখানা, বর্জ্য নিষ্কাশন হলে পাইকা রোগ বাসা বাধতে পারে মনে। কেউ আবার বলছেন,  উদ্বেগ থেকেই এই রোগের জন্ম। পড়াশোনার চাপ, বাবা-মায়ের মধ্যে সম্পর্কের অবনতি হলে শিশুর উপর মানসিক চাপের সৃষ্টি হয়। তার থেকেই পাইকা’র জন্ম হতে পারে।
চিকিৎসকদের মতে, এই রোগের সঙ্গে মানসিক অসুস্থতা, উদ্বেগ, অপুষ্টি, রক্তাপ্লতার সম্পর্ক রয়েছে। গর্ভবতী মহিলা এবং ডিমেনশিয়ায় কাবু বয়স্কদের মধ্যেও এই রোগের প্রকোপ দেখা যায়। পাইকা’য় আক্রান্তরা অনেক সময় যৌনাঙ্গ দিয়েও বিজাতীয় জিনিস প্রবেশ করায়। বিজ্ঞানীদের মতে  পাইকা’য় আক্রান্তদের পরিপাকতন্ত্র এমনভাবে তৈরি হয়ে যায় যে লোহাও হজম হয়ে যায়।
জেনে নিন জুমার দিনের কিছু আমল

জেনে নিন জুমার দিনের কিছু আমল

জার্নাল ডেস্ক
ইসলামের জুমার গুরুত্ব অপরিসীম।ছয়দিন পর মুসলিম উম্মার দুয়ারে হাজির হয় এই দিনটি। দিনটি সম্পর্কে স্বয়ং আল্লাহপাক কুরআনে বলেছেন ‘হে মুমিনগণ জুমার দিনে যখন নামাজের আজান দেয়া হয়, তখন তোমরা আল্লাহর স্মরণের উদ্দেশেও দ্রুত ধাবিত হও এবং ক্রয়-বিক্রয় ত্যাগ কর’।সূরা জুমা, আয়াত নং-৯। 
তাই জুমার আজানের আগেই সব কর্মব্যস্ততা ত্যাগ করে জুমার নামাজের জন্য প্রস্তুতি গ্রহণ করে মসজিদে গমন করা সব মুসলমানের ইমানি দায়িত্ব।এই দিনের বিশেষ কিছু আমল রয়েছে, যা হাদিস দ্বারা প্রমাণিত। এর মধ্যে কয়েকটি আমল নিচে উল্লেখ করা হলো:
হজরত আউস ইবনে আউস রা. বলেন, ‘রাসুল (সা.) ইরশাদ করেছেন, ‘যে ব্যক্তি জুমার দিনে ভালোভাবে গোসল করবে, সকাল সকাল প্রস্তুত হয়ে হেঁটে মসজিদে গমন করে ইমাম সাহেবের কাছে বসবে এবং মনোযোগী হয়ে তার খুতবা শ্রবণ করবে ও অনর্থক কর্ম থেকে বিরত থাকবে, তার প্রত্যেক কদমে এক বছরের নফল রোজা এবং এক বছরের নফল নামাজের সওয়াব আল্লাহপাক তাকে দান করবেন।’ (নাসাঈ শরিফ ১৫৫)
হজরত আবু হুরায়রা (রা) বলেন, ‘রাসুল (সা.)  বলেছেন ‘যে উত্তমরূপে অজু করবে, অতঃপর জুমার মসজিদে গমন করবে এবং মনোযোগ সহকারে খুতবা শ্রবণ করবে তার এ জুমা থেকে পূর্ববর্তী জুমাসহ আরো তিন দিনের গুনাহগুলো ক্ষমা করা হবে। আর যে ব্যক্তি খুতবা শ্রবণে মনোযোগী না হয়ে খুতবা চলাকালীন কঙ্কর-বালি নাড়ল, সে অনর্থক কাজ করল।’ (মুসলিম শরিফ ১/২৮৩)।
হজরত আবু সাঈদ খুদরি (রা) থেকে বর্ণিত আছে যে, মহানবী (সা.) বলেছেন, ‘যে ব্যক্তি জুমার দিনে সূরা কাহ্ফ তেলাওয়াত করবে তার (ইমানের) নূর-এ জুমা থেকে পরবর্তী জুমা পর্যন্ত চমকাতে থাকবে।’ (মেশকাত শরিফ-১৮৯) 
হজরত জাবের ইবনে আব্দুল্লাহ রাযি থেকে বর্ণিত রাসুল (সা.) বলেছেন ‘
 সরকারি চাকরিজীবীদের গৃহঋণ ৭৫ লাখ টাকা

সরকারি চাকরিজীবীদের গৃহঋণ ৭৫ লাখ টাকা

অনলাইন ডেস্ক
সর্বোচ্চ ৭৫ লাখ টাকা গৃহঋণ পাবেন সরকারি চাকরিজীবীরা। এ সংক্রান্ত নীতিমালা চূড়ান্ত করেছে অর্থ মন্ত্রণালয়। বৃহস্পতিবার অর্থবিভাগের সচিব মোহাম্মদ মুসলিম চৌধুরীর সভাপতিত্বে সচিবালয়ে অনুষ্ঠিত এক আন্তঃমন্ত্রণালয় সভায় এ নীতিমালা চূড়ান্ত হয়।

বৈঠকে উপস্থিত এক কর্মকর্তা জানান, ঢাকা মহানগর, বিভাগীয় শহর, জেলা শহর ও অন্যান্য এলাকার জন্য আলাদা আলাদা ঋণসীমা তুলে নিয়ে সারাদেশের জন্য একই ঋণসীমা নির্ধারণের সিদ্ধান্ত হয়েছে। ফ্ল্যাট কেনা বা নিজস্ব জমিতে বাড়ি নির্মাণে ঋণ প্রদানের জন্য ডেট ইক্যুইটি রেশিও হবে ৯০ : ১০। অর্থাৎ, ফ্ল্যাট কেনা বা নিজস্ব জমিতে বাড়ি নির্মাণের জন্য কেউ ১০ টাকা খরচ করলে তিনি ৯০ টাকা ঋণ পাবেন।
বৈঠক সূত্রে আরো জানা যায়, উপসচিব থেকে সচিব পদমর্যাদা পর্যন্ত জাতীয় বেতন স্কেলের পঞ্চম গ্রেড থেকে প্রথম গ্রেডভুক্ত কর্মকর্তাদের জন্য ৭৫ লাখ টাকা পর্যন্ত গৃহঋণ অনুমোদন করা হয়েছে। সর্বনিম্ন ১৮তম গ্রেড থেকে ২০তম গ্রেডের জন্য গৃহঋণ ৩৫ লাখ টাকা থেকে কমিয়ে ৩০ লাখ টাকা নির্ধারণের সিদ্ধান্ত হয়েছে।

এছাড়া ঋণের সুদ হার হবে ১০ শতাংশ।  ২০ বছরে এই ঋণ মাসিক কিস্তিতে পরিশোধ করতে হবে। চাকরি স্থায়ী হওয়ার পাঁচ বছর পর থেকে ৫৮ বছর বয়স পর্যন্ত এ ঋণ নেয়া যাবে।অর্থসচিব মোহাম্মদ মুসলিম চৌধুরী সাংবাদিকদের বলেন, সর্বোচ্চ ৭৫ লাখ টাকা গৃহঋণ নির্ধারণ করে খসড়া নীতিমালা চূড়ান্ত হয়েছে। এখন এটি অর্থমন্ত্রীর সম্মতির পর মন্ত্রিপরিষদের সভায় উত্থাপন করা হবে।
ফিরছেন চিত্রনায়িকা শাকিবা বিনতে আলী

ফিরছেন চিত্রনায়িকা শাকিবা বিনতে আলী

চিত্রনায়িকা শাকিবা বিনতে আলী। ২০০৫ সালে মনতাজুর রহমান আকবরের পরিচালনায় ‘ভণ্ড নেতা’ ছবির মাধ্যমে ঢালিউডে কাজ শুরু করেন তিনি। তবে প্রথম মুক্তিপ্রাপ্ত ছবির নাম ‘জীবনের গ্যারান্টি নাই’। এ ছবিটিও পরিচালনা করেন মনতাজুর রহমান আকবর। আর এতে শাকিবার নায়ক হিসেবে অভিনয় করেন আমিন খান। এরপর তার অভিনীত ‘বাঁচাও দেশ’,‘ মাঝির ছেলে ব্যারিস্টার’, ‘দুর্ধর্ষ’, ‘বস্তির ছেলে কোটিপতি’, ‘এক জবান’, ‘মাটির ঠিকানা’, ‘রূপান্তর’সহ প্রায় ৪০টি ছবি মুক্তি পায়। এরপর লম্বা বিরতি। হঠাৎ করেই বড় পর্দা থেকে সরে যান শাকিবা। সে সময় চার দিকে কথা ওঠে যে, আমেরিকায় বিয়ে করে সেখানেই বসবাস শুরু করেছেন এ অভিনেত্রী। তবে শাকিবা  বলেন, এসবই ছিল মিথ্যে কথা। আমি সেসময় আমেরিকায় দুটি শোতে অংশ নিয়েছিলাম। সেটাও দুই বছরের গ্যাপে দু’টি শো করেছি। আর বিয়ের বিষয়টি সত্য না। আমি পড়াশোনার কারণে কাজ থেকে বিরতি নিয়েছিলাম। সম্প্রতি আমি বেসরকারি একটি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বিবিএ ও এমবিএ শেষ করেছি। আর কাজ নিয়ে আবারো ভাবছি। শাকিবার রেজাল্টও বেশ ভালো। তবে তিনি চাকরি নয়, নতুন ছবির কাজে আবারো ফিরবেন বলে জানান। এজন্য কলকাতার বেশ কয়েকটি প্রোডাকশন হাউজের সঙ্গে তিনি মিটিং করেছেন। শাকিবা বলেন, গত ২৪শে এপ্রিল কলকাতা থেকে ঢাকায় ফিরেছি। কলকাতার পরিচালক রাজা সেনের সঙ্গে ‘সুরমাই’ নামে একটি ছবির কথা হয়েছে। ‘সুরমাই’ মূলত একটি প্রতীকী নাম। এ ছবির গল্পটা কলকাতা শহরের হলেও মানুষের মনের গল্প বলা যায়। মৌলিক গল্পের ছবি এটি। একটি মেয়ের ওপর পুরো কাহিনী। সব ঠিক থাকলে জুন মাস থেকে এ ছবির কাজ শুরু করব। এছাড়া কলকাতার আশিষ ঘোষ এবং পরিজাত বোসের সঙ্গেও কথা হয়েছে। একসময় চলচ্চিত্র ছিল শাকিবার দ্বিতীয় পরিবার। শাকিব খান, আমিন খানসহ অনেকের সঙ্গে তার কাজ হয়েছে। তাই শাকিবা বলেন, শুধু কলকাতা না ভালো গল্পের ছবি পেলে ঢালিউডেও কাজ করতে চাই। কারণ, এখানকার মানুষগুলো আমার বেশি আপন। একটা সময় মনে হয়েছিল চলচ্চিত্রে আর ফেরা হবে না। তবে আবারো ভালো কিছু ছবি নির্মাণ হচ্ছে। তাই অভিনেত্রী হিসেবে ভালো কাজের সঙ্গে সংযুক্ত হতে চাই। আর এজন্য নিজেকে তৈরি করার প্রস্তুতিও নিচ্ছি। নিজের ওজন কমানোর জন্য দৈনিক ৫-৬ ঘণ্টা ব্যায়াম করছেন শাকিবা। খাবারেও এনেছেন পরিবর্তন। সব ঠিক থাকলে কলকাতার নতুন ছবি ‘সুরমাই’-এ খুব শিগগিরই দেখা যাবে এই চিত্রনায়িকাকে।
যৌন হেনস্তা নিয়ে মুখ খুললেন ঊষা

যৌন হেনস্তা নিয়ে মুখ খুললেন ঊষা

হলিউডের #MeToo-র প্রভাব দেশের চলচ্চিত্র জগতে বেশ ভালই পড়েছে। একে একে নিজেদের  হেনস্তার কথা প্রকাশ্যে আনছেন অভিনেত্রীরা। কেবল বলিউড নয়, আঞ্চলিক ছবির অভিনেত্রীরাও প্রতিবাদ করতে পিছপা হচ্ছেন না। এবার প্রতিবাদে সরব হলেন জাতীয় পুরস্কারজয়ী মারাঠি অভিনেত্রী ঊষা যাদব। কাস্টিং কাউচ নিয়ে একটি তথ্যচিত্র তৈরি করেছে বিবিসি। নাম দেওয়া হয়েছে ‘বলিউড’স ডার্ক সিক্রেট’। সেখানেই এই বিস্ফোরক তথ্য জানান ঊষা। ‘ট্রাফিক সিগন্যাল’, ‘বীরাপ্পন’-এর মতো বলিউড সিনেমায়ও অভিনয় করেছেন। মারাঠি ছবি ‘ধাগ’-এর জন্য পেয়েছেন জাতীয় পুরস্কার। নিজের অভিজ্ঞতার কথা বলতে গিয়ে ঊষা জানান, এক প্রযোজকের সঙ্গে দেখা করতে গিয়েছিলেন তিনি। প্রযোজক তাকে বলে, অভিনেত্রী হতে গেলে অন্যরকম সাহায্য করতে হবে। প্রথমে বুঝতে পারেননি ঊষা। তিনি বলেন, তার কাছে টাকা নেই। তখন সেই প্রযোজক হাসতে হাসতেই  কুপ্রস্তাব দেয়। বলেন, তার সঙ্গে তো বটেই প্রয়োজনে পরিচালকের সঙ্গেও এক বিছানায় যেতে হবে। এই পেশায় থাকতে গেলে যৌনতাকে ব্যবহার করতেই হবে। নতুন ছিলেন নায়িকা। প্রযোজক তার শরীরের আপত্তিকর জায়গায় স্পর্শ করতে শুরু করে। এমনকী তার পোশাকের ভিতরেও হাত ঢুকিয়ে দেয়। তখনই প্রতিবাদ করে ওঠেন ঊষা। থমকে গিয়ে প্রযোজক বলেছিল, এমন ব্যবহার হলে নাকি তিনি ইন্ডাস্ট্রিতে কাজ পাবেন না।